বুধবার,২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং,৮ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৯:৫৯
বৌ সাজানো প্রতিযোগিতা শুরু করলেন কেকা ফেরদৌসী ১৮ নম্বরে শাকিব কলকাতার সেরাদের তালিকায় পলাশবাড়ী স্বেচ্ছায় রক্তদান সংগঠনের প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত শৈলকুপায় খাবার হোটেলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা হাতীবান্ধায় স্টুডেন্ট কাউন্সিল অনুষ্ঠিত ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপের উপজেলা নির্বাচন হবে : ইসি সচিব ডোমার ভিত্তি বীজ আলু উৎপাদন খামারে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা।

পিরোজপুরে শ্মশান থেকে যুবতীর মরদেহ উদ্ধার তিন দিন পর ময়নাতদন্ত


পিরোজপুর প্রতিনিধি
পিরোজপুর সদর থানা পুলিশ শ্মশান থেকে লক্ষ্মী রানী (১৭) নামের এক যুবতীর মরদেহ উদ্ধার করেছে । তিন দিন পর রোববার বিকেলে মরদেহের মযনাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। সে পিরোজপুর সি.আইপাড়া সড়কের বলেশ্বর ব্রীজ এলাকার এবং পাশ্ববর্তী মোড়েলগঞ্জ হোগলাবুনিয়া গ্রামে অরুন দাসের মেয়ে। বিষয়টি নিশ্চিত করে এ ঘটনার তদন্তকারি কর্মকর্তা পিরোজপুর সদর থানার উপ পরিদর্শক ভাস্কর চন্দ্র দে জানান অরুণ দাসের মেয়ে লক্ষ্মী রাণীকে কাউখালী উপজেলার বাসিন্দা তরুন দে’র স্ত্রী সঙ্গীতা আইচ প্রায় সাত বছর আগে তাদের ঢাকার বাসায় গৃহ পরিচারিকার জন্য নেয়। তাদের বাসা ঢাকার হাজারিবাগের ২৪০ নম্বর সুলতানগঞ্জ রাজাবাজারে। তাকে ঢাকায় নেয়ার সময় লক্ষ্মীর বাবা-মায়ের সাথে চুক্তি করে যে লক্ষ্মীর পারিশ্রমিক বাবদ প্রতি মাসে এক হাজার টাকা দিবে। সে যখন বিবাহ যোগ্য হবে তখন তাদের খরচায় তাকে বিবাহ দিয়ে দিবেন। তবে লক্ষ্মীর বাবা অরুণ চন্দ্র দাস পুলিশকে বলেছেন সাত বছরে তার মেয়ের পারিশ্রমিক বাবৎ একটি টাকাও দেয়নি। হঠাৎ করে গত ১৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সঙ্গীতা আইচের ভাই টুটুল আইচ মোবাইল ফোনে লক্ষ্মীর বাবাকে জানায় আপনার মেয়ে অসুস্থ। বিকেলে লক্ষ্মীর মৃত্যু সংবাদ দেওয়া হয়। গত শুক্রবার তারা লক্ষ্মীর মরদেহ নিয়ে পিরোজপুরে এসে দ্রুত দাহ করার জন্য শ্মশানে নেওয়া হয়। পিরোজপুর সদর থানার ওসি এসএম জিয়াউল হক বলেন লক্ষ্মীকে গৃহকর্তা ও তার বাসার লোকেরা নির্যাতন করে হত্যা করেছে গোপনে এমন সংবাদ পেয়ে এসআই ভাস্কর চন্দ্র দেকে পাঠিয়ে দাহ করার আগেই পিরোজপুর শহরের পৌরসভা শ্মশান থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে। তদন্তকারি কর্মকর্তা জানান লক্ষ্মী রাণীর মরদেহের সুরাত হাল রিপোর্ট করার সময় দেখা যায় তার গলা দাগ, মাথায় আঘাতের চিহ্ন, নাকদিয়ে রক্ত পড়ছিলো ও জরায়ু থেকেও রক্ত ঝড়ছিলে। তিনি জানান লক্ষ্মীর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য প্রথমে পিরোজপুর মর্গে পাঠান হয়েছিলো। সেখান পর্যাপ্ত সরঞ্জামাদি না থাকায় শনিবার বরিশাল মর্গে মরদেহটির ময়নাতদন্তের জন্য পাঠালে সেখান থেকেও ফেরৎ দেয়া হলে রোববার পিরোজপুরে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হয়। সদর থানার ওসি এসএম জিয়াউল হক জানান এ মৃত্যু রহস্য জনক বলে মনে হচ্ছে। নিহত লক্ষ্মীর বাবা অরুন দাস উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান আমার মেয়েকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকারীদের বিচার দাবি করেন তিনি। পুলিশ জানিয়েছে এ ব্যাপারে একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর আসল রহস্য পাওয়া যাবে।

আপনার মতামত লিখুন

ঢাকা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ