শুক্রবার-১৯শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং-৬ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১২:১৬
কাল শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ঢাকায় পৌঁছেছেন ফেরদৌস রমজানে পণ্যের দাম বাড়বে না: বাণিজ্যমন্ত্রী পার্বতীপুরে স্কুল ফিডিং কার্যক্রম পরির্শনে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিযোগ বক্স রাখার সুপারিশ তাইওয়ানে শক্তিশালী ভূমিকম্প নুসরাত হত্যাকারীদের শাস্তি দাবিতে গাইবান্ধায় মৌন প্রতিবাদ

শ্রমিক নেতা ও খনি কর্মকর্তার পরস্পর বিরোধী বক্তব্য

পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়ায় কয়লা উত্তোলন বন্ধ

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি
আবারো বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে গেছে। এবার বাংলাদেশী শ্রমিকরা ১৯ মাসের ছুটির দিন গুলোর বকেয়া বেতনের দাবীতে কয়লা উত্তলন বন্ধ করে দিয়েছে। এর আগেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এক্সএমসি কনসোর্টিয়ামকে খনি কর্তৃপক্ষ ১৮৬ কোটি টাকা বকেয়া পাওনা পরিশোধ না করায় তারা কয়লা উত্তোলন বন্ধ রেখেছিল। তবে খনি কর্তৃপক্ষের দাবী শ্রমিকদের একটি গ্রুপ কাজে যোগদান না করলেও অন্য গ্রুপের শ্রমিকরা কয়লা উত্তোলন কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
খনি সূত্রে জানা যায়, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির প্রোডাকশন, মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড প্রভিসনিং সার্ভিস চীনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি-সিএমসি কনসোর্টিয়ামের অধিন নিয়জিত ১হাজার বাংলাদেশী শ্রমিদের গত ১৯ মাসের ছুটির দিন গুলোর (৭২ দিন) বেতন বকেয়া রয়েছে। এ নিয়ে বেশ কিছু দিন থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসছিল শ্রমিকরা। কিন্তু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান খনি কর্তৃপক্ষের কাছে ১৮৬ কোটি টাকা বকেয়া থাকার অজুহাতে তাদের টাকা পরিশোধ না করলেও শ্রমিকরা বাধ্য হয়ে কাজ চালিয়ে আসছিল। গত ১মার্চ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কয়লা উত্তোলন কাজ বন্ধ করে দিলে খনি কর্তৃপক্ষ কিছু টাকা পরিশোধ করে তাদের। কিন্তু শ্রমিকদের ফেব্রুয়ারী মাসের বেতনসহ বকেয়া টাকা পরিশোধ করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। বাধ্য হয়ে গতকাল বুধবার দুপুরের শীফটের শ্রমিকরা কাজে যোগদান থেকে বিরত থাকে। ফলে কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।
খনি শ্রমিক নুরুজ্জামান সরকার বলেন, বুধবার দুপুর ১২টায় তার খনির ভূ-গর্ভে নামার কথা ছিল। কিন্তু বকেয়া টাকা পরিশোধ না করায় তাদের শীফটের ৩-৪শ শ্রমিক কাজে যোগদান না করে ফিরে এসেছে।
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক আবু সুফিয়ান বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ফেব্রুয়ারী মাসের বেতনসহ ১৯ মাসের ছুটির ৭২ দিনের বেতন না দেওয়ায় শ্রমিকরা কাজে যোগদান থেকে বিরত আছে।
এ ব্যপারে জানতে চাইলে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ম্যানেজার মাইনিং মোশাররফ হোসেন বলেন, খনির শ্রমিকদের মধ্যে বেশ কয়েকটি গ্রুপ রয়েছে। একটি গ্রুপ কাজে যোগদানে বিরত থাকলেও অন্য গ্রুপ গুলোর শ্রমিকরা কাজে যোগদান করেছে। কিছুটা প্রভাব পড়লেও কয়লা উত্তোলন স্বাভাবিক রয়েছে
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ফজলুর রহমান বলেন, একটি গ্রুপের দুপুরের শীফটের কিছু শ্রমিক কাজে যোগদান করেনি। তবে অন্য গ্রুপের শ্রমিকরা কাজে যোগদান করায় উৎপাদন স্বাভাবিক রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

রংপুর,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ