বুধবার,২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং,৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: ভোর ৫:৩৪
বাংলাদেশ তিন বছরের জন্য ওপিসিডাব্লিউ’র সদস্য নির্বাচিত মির্জাপুরে ভ্রামমাণ আদালতের অভিযানে ৫ ড্রেজার মেশিন ধ্বংস ও ২ জনের সাজা পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী (সা.) কাল শহীদ জিয়া জনসংখ্যাকে মানব সম্পদে পরিনত করেছিলেন একারণেই আমি বিএনপি’র রাজনীতি করি- সৈয়দপুর পৌর মেয়র হাতীবান্ধায় জলপাইয়ের বিচি গলায় আটকে শিশুর মৃত্যু “জলঢাকায় প্রত্যন্ত এলাকায় প্রাইমারী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা কেন্দ্র ভাবনচুর এমটিএস উচ্চ বিদ্যালয়” ইসি সচিবসহ সংশ্লিষ্ট চারজনের শাস্তি দাবি বিএনপির

নড়াইলে ওসি, এসআইসহ ১৩ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: নড়াইলের লোহাগড়া থানার সাবেক ওসি বিপ্লব কুমার সাহাসহ ১৩ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান। আজ সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে লোহাগড়া আমলী আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদুল আজাদের আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। মামলাটি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ হাসানকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া এ মামলায় আসামি করা হয়েছে আ. লীগ নেতা শরিফুল ইসলাম এবং নড়াইল সদর হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার মঞ্জুরুল মোর্শেদ মুনকে। মামলার অন্য আসামিরা হলেন-এসআই নয়ন পাটোয়ারী, এসআই শিমুল কুমার দাশ, এসআই নাছির উদ্দিন আকন্দ, এসআই মিহির কান্তি পাল ও এসআই শাহিনুর রহমান এবং এএসআই মাসুদুর রহমান, এএসআই তানভীর হোসেন, এএসআই আব্দুল হাকিমসহ চার পুলিশ সদস্য।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৩ আগস্ট রাত ৯টার দিকে লোহাগড়া পৌরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আশরাফুল আলমের পক্ষে মতিয়ার রহমান কচুবাড়িয়া এলাকায় প্রচার চালানোর সময় স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী শেখ শরিফুল ইসলামের ক্যাডার জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে জনগন ২টি পিস্তল এবং ৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে পুলিশে সোপর্দ করে।

এ ঘটনায় ওই দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে লোহাগড়া পৌরসভার পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন কাশিপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমানকে লোহাগড়া থানা পুলিশ ডেকে নিয়ে থানার মধ্যে ওসিসহ পুলিশ সদস্যরা তাকে (মতিয়ার) বেদম মারধর করে। পরে আহত অবস্থায় তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন থাকলেও কর্মরত চিকিত্সক ডা. মঞ্জুরুল মোর্শেদ মুন রিপোর্টে কোনো আঘাতের চিহ্ন উল্লেখ করেননি।

মতিয়ার রহমান বলেন, লোহাগড়া থানা মামলা গ্রহণ না করায় এ মামলা দায়ের করতে বিলম্ব হলো। এ ছাড়া তত্কালীন ওসিসহ পুলিশ সদস্যরা লোহাগড়া থানায় কর্মরত থাকায় ভয়ে মামলা করার সাহস পাননি বলে মামলায় উল্লেখ করেন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন

খুলনা,সারাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ