বুধবার,১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং,৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ১১:৫১
ফরিদপুরের সানফ্লাওয়ার টিচার্স ট্রেনিং কলেজে বি এড কোর্সে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি চার হাসপাতালকে জরিমানা, ভুয়া ডাক্তারের ছয় মাসের দণ্ড বরিশালের সরকারি স্কুলের ভর্তি পরীক্ষর ফল প্রকাশ ছাতকে আ. লীগ প্রার্থী মানিককে কওমী আলেমদের সমর্থন পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ দীপিকার নতুন নায়ক বিক্রান্ত ২০ জনকে নিয়োগ দেবে হাতিম গ্রুপ

দেশে কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা প্রায় ৬৯ হাজার

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:   গত একবছরের ব্যবধানে দেশে কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা নতুন করে ৬ হাজার ৪৭৩ জন বেড়ে এখন ৬৮ হাজার ৮৯১ জনে দাড়িয়েছে। বুধবারপ্রকাশিত বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তৈরি করা এক প্রতিবেদনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত সময়ের তথ্য নিয়ে তৈরি এই প্রতিবেদনটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৬ সালের জুন শেষে ব্যাংক খাতে মোট কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা ছিল ৬২ হাজার ৪১৮ জন। আর এই বছরের জুন শেষে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৮ হাজার ৮৯১ জনে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিন মাসের ব্যবধানে ব্যাংক খাতে কোটিপতি আমানতকারী বেড়েছে ২ হাজার ৯৪০ জন। আর ছয় মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৩ হাজার ৯৪ কোটিপতি। গত মার্চে ব্যাংক খাতে কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা ছিল ৬৫ হাজার ৯৫১ জন এবং ডিসেম্বর শেষে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৫ হাজার ৭৯৭ জন।

বর্তমানে এককোটি টাকা ওপরে আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা ৫৪ হাজার ৩১৭ জন। একবছরের ব্যবধানে এক কোটি টাকা ওপরে আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা বেড়েছে ৪ হাজার ৮৫৪ জন। অর্থাৎ ২০১৬ সালের জুনে এই সংখ্যা ছিল ছিল ৪৯ হাজার ৪৬৩ জন। তিন মাস আগে এই সংখ্যা ছিল ৫২ হাজার ৮৭ জনে।

জুন শেষে ৪০ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন, এমন ব্যক্তি রয়েছেন ৩৮৭ জন। ব্যাংক খাতে ৩৫ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন, এমন ব্যক্তির সংখ্যা ১৭৭ জন। ৩০ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন ২৫৯ জন। ২৫ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন এমন ব্যক্তির সংখ্যা ৪৫৫ জন। ব্যাংক খাতে ২০ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন ৭৪২ জন। ১৫ কোটি টাকারও বেশি আমানত রাখা ব্যক্তির সংখ্যা ১ হাজার ২৭০ জন। ১০ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন এমন ব্যক্তির সংখ্যা ২ হাজার ৬৯৮ জন। ৫ কোটি টাকারও বেশি আমানত রেখেছেন ৭ হাজার ৭৩৩ জন।

এ প্রসঙ্গে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘দেশে বিনিয়োগ পরিস্থিতি ভালো না থাকায় অনেকেই ব্যাংকে টাকা জমা রাখছেন। যারা ডাবল স্কিমে ৬ বা ৭ বছর আগে ব্যাংকে টাকা জমা রেখেছেন, এখন তাদের টাকা দ্বিগুণ হয়েছে। এভাবে কোটিপতির সংখ্যা বাড়াতে সহায়তা করছে।’

তিনি বলেন, ‘ব্যাংক খাতে কোটিপতি আমানতকারী বাড়ার ফলে সমাজে একটি বিশেষ শ্রেণি ক্রমেই ধনী হয়ে যাচ্ছে। এর ফলে সমাজে বৈষম্যও বাড়ছে ।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, ‘কোটিপতি আমানতকারী বাড়ার অর্থ হলো-টাকাওয়ালাদের কাছে ব্যাংকিং খাত জিম্মি হয়ে পড়ছে। এটা হয়েছে, কল্যাণ অর্থনীতির নীতি থেকে সরে যাওয়ার কারণে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন পুরোপুরি ধনতান্ত্রিক অর্থনীতিকে অনুসরণ করছে। যা মূলত আমেরিকার নীতি। এই নীতিতে মূলত জোরজুলম করে, যেনতেনভাবে টাকা বানানো হয়। এখন বাংলাদেশেও তাই হচ্ছে।’

সূএ: কালের কণ্ঠ

আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ