সোমবার,১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং,৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৬:২৭
কলাপাড়ায় সমাপনী পরীক্ষায় অনপুস্থিত ২৩৩ মির্জাপুরে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উপলক্ষে এ্যাডভোকেসি সভা মধ্যপাড়া খনিতে পাথর উৎপাদনে পূর্বের রেকর্ড অতিক্রম ‘নির্বাচন হলেও ১ জানুয়ারি নতুন বই পাবে শিক্ষার্থীরা’ ১শ’৬ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করে চাঁদপুর পাসপোর্ট অফিসের রেকর্ড জাবিতে তীব্র বাস সংকটে চরম ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক ও ইবেতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু

ডেমোক্র্যাটদের নীল প্রবাহের বিরুদ্ধে রিপাবলিকানদের শক্ত লাল দেয়াল

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: আমেরিকার মধ্যবর্তী নির্বাচনে কোনো পক্ষেরই জয় হয়নি। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর লাল প্রবাহ আনতে ব্যর্থ হয়েছেন। ডেমোক্র্যাট দল কংগ্রেসের দখল পেলেও নীল ঢেউ আনতে পারেনি। মধ্যবর্তী নির্বাচনে আমেরিকার রাজনীতির বিভক্তি আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। ডেমোক্র্যাটরা প্রান্তিক নগরীগুলোতে ভালো ভিত্তি গড়ে তুলেছে। পাশাপাশি লাল রাজ্য হিসেবে পরিচিত এলাকায় রিপাবলিকান দল তাদের ঘাঁটি আরও মজবুত করেছে।

নিউইয়র্কের অতি উদারনৈতিক আলেকজান্দ্রিয়া ওকাশিও মাত্র ২৯ বছর বয়সে ডেমোক্র্যাট দল থেকে কংগ্রেসে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন। আমেরিকার ইতিহাসে এবারেই প্রথম কংগ্রেসে দুজন মুসলমান নারী নির্বাচিত হলেন। যদিও ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, ডেমোক্র্যাটদের নীল প্রবাহের বিরুদ্ধে রিপাবলিকানদের শক্ত লাল দেয়াল এখন ওয়াশিংটনে।

নির্বাচনের দিনটিতে ফ্লোরিডা রাজ্যের ভোটের গতি-প্রকৃতি হতাশ করেছে ডেমোক্র্যাটদের। ফ্লোরিডায় রিপাবলিকান রনডি সেন্তিস গভর্নর হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কট্টর সমর্থক। ফ্লোরিডায় ডেমোক্র্যাটদের ভালো খবর হচ্ছে, ২৭ নির্বাচনী ডিসট্রিক্টে তাদের প্রার্থী ডানা শালালা রিপাবলিকান প্রার্থী লিয়ানা রসের পুনঃ নির্বাচন ঠেকিয়ে দিয়েছেন। ভার্জিনিয়া, পেনসিলভানিয়া এবং মিনাসোটায়ও নিজেদের ভোট বাড়াতে সক্ষম হয়েছে ডেমোক্র্যাটরা।

৬ নভেম্বর রাত সিনেট রিপাবলিকানদের জন্য ছিল সুখবরের রাত। প্রতিনিধি পরিষদে তাদের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে পেরেছে সিনেটে আসন বৃদ্ধি করে। মিজৌরি, ইন্ডিয়ানা ও নর্থ ডাকোটাতে ডেমোক্র্যাটদের হারিয়ে সিনেট আসন বৃদ্ধি করেছে রিপাবলিকান দল। সব ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, জানুয়ারিতে সিনেটে ৫২ আসন দেখাতে পারবে রিপাবলিকান দল। কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাটদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য অসুবিধার। সিনেটে রিপাবলিকান দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য রক্ষাব্যুহ হিসেবে কাজ করবে।

এবারের মধ্যবর্তী নির্বাচনে আমেরিকার মুসলমানরা উৎফুল্ল হওয়ার কারণ খুঁজে পেয়েছেন। মিনেসোটা থেকে নির্বাচিত ইলহান ওমর এবং মিশিগান থেকে নির্বাচিত রাশিদা তালিব নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। মার্কিন কংগ্রেসে অপর মুসলমান সদস্য এন্ডরে কারসন ইন্ডিয়ানা থেকে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন।

সম্ভাবনা ও সাফল্যের দেশ আমেরিকায় প্রথম নেটিভ আমেরিকান নারী শারিস ডাভিস প্রথমবারের মতো ডেমোক্র্যাট দলের হয়ে কংগ্রেসে যাচ্ছেন। নিউ মেক্সিকো থেকে আরেক নেটিভ আমেরিকান ডেবরা হালান্ড কংগ্রেসে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।

কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাট দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা মানে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এখন সমঝে চলতে হবে। তাঁর অনেক আগ্রাসী পদক্ষেপ ভন্ডুল করে দিতে পারে ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত কংগ্রেস। ডেমোক্র্যাট দল সাবেক স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিকেই স্পিকার নির্বাচিত করতে পারে। আপসহীন এই নারী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সব আগ্রাসী নীতির কড়া সমালোচক। অতি উদারনীতিক ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টের প্রস্তাব করতে পারেন। যে কোনো বিষয়ে সফিনা দেওয়ার ক্ষমতা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য উদ্বেগের কারণ। তাঁর বিরুদ্ধে গত নির্বাচনে রাশিয়ার সঙ্গে গোপন সম্পর্ক নিয়ে কংগ্রেস তদন্ত দাবি করতে পারে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রস্তাবিত সীমান্ত দেয়াল নির্মাণ ঠেকিয়ে দিতে পারে। নানা কারণেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য তাঁর খেয়ালি কর্মসূচি এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আর আগের মতো সহজ হবে না। যদিও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর নির্বাহী ক্ষমতা ব্যবহার করেই যাবেন বলে মনে হচ্ছে। তাঁর বিপক্ষে কংগ্রেসে পদক্ষেপ নেওয়ার বেলায় সিনেটে তাঁর শক্ত দেয়ালই এখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভরসা। আমেরিকার শানতান্ত্রিক ভারসাম্যের অন্যতম স্তম্ভ সুপ্রিম কোর্টে এখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ধারণার সমর্থকদের সংখ্যাগরিষ্ঠতাও তাঁর জন্য একটি সুবিধাজনক বিষয়।

মধ্যবর্তী নির্বাচনের পরদিন বুধবার সকালেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নির্বাচনে বিজয় হয়েছে বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর নেতৃত্বের সময়ে কংগ্রেসে হেরে যাওয়ার পরও সিনেটের ফলাফল এবং নিজের জনপ্রিয়তা নিয়ে তিনি এখনো উচ্ছ্বসিত। আমেরিকার অর্থনীতি এখন চমৎকার, বেকারত্বের হার সর্বনিম্ন। সাধারণভাবে জনমত জরিপে ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা এখন ৫০ শতাংশের কাছাকাছি। যদিও বুধবারে দেওয়া তাঁর টুইট বার্তায় ডেমোক্র্যাটদের তিনি হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন। জনগণের করের অর্থের তদন্ত নিয়ে ডেমোক্র্যাটদের চেষ্টার ব্যাপারে আগাম হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘যাঁরা নির্বাচনে কোনো কোনো নির্দিষ্ট নীতি ও ধারণার ওপর কাজ করেছেন—তাঁরা খুব ভালো করেছে।’ যাঁরা করেনি—তাঁদের ‘গুড বাই’ জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি এক বার্তায় বলেছেন, নির্বাচনে তাঁর জয় হয়েছে এবং অনেক বিদেশি নেতারা তাঁকে অভিবাদন জানিয়েছেন। যদিও কোন কোন বিদেশ নেতার অভিবাদন পেয়েছেন, তা তিনি উল্লেখ করেননি।

আসছে জানুয়ারিতে নতুন কংগ্রেস শপথ গ্রহণ করবে। অনেকেই মনে করছেন, শুরু হবে ওয়াশিংটনের রাজনীতিতে নতুন উত্তেজনা। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তাঁর দলের একচ্ছত্র আধিপত্যের অবসানে কিছুটা হলেও স্বস্তির সুবাতাস একদিকে বইছে। অন্যদিকে নানা অচলাবস্থায় আমেরিকার অর্থনৈতিক চাঞ্চল্য বাধাগ্রস্ত হবে কি না—এ নিয়েও উদ্বেগ দেখা গেছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসের সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সম্পর্ক যে উত্তেজনাকর হবে, এ নিয়ে সন্দেহ নেই কোনো পক্ষেরই। এখন দেখার অপেক্ষা, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কতটা সমঝোতা করে তাঁর নানা পদক্ষেপ এগিয়ে নিতে পারেন। নিজের ভিত্তি শক্ত রাখতে তাঁকে এখন কৌশলী হতে হবে—এমন অভিমত আমেরিকার রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

আপনার মতামত লিখুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ