মঙ্গলবার,২২শে মে, ২০১৮ ইং,৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: সন্ধ্যা ৬:১১
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অবকাঠামো নির্মাণ শিগগিরই শুরু বাংলাদেশ ব্যাংকের লিখিত পরীক্ষা ২৫ মে প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার কলকাতা যাচ্ছেন মারা গেছেন অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ উল্লাপাড়ায় বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু নাটোরে আম সংগ্রহে দুই মাসের সময় বেধে দিল প্রশাসন পার্বতীপুরের শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলাহাটি ডিগ্রী কলেজ

গেট ভেঙে ঢাবি উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও

4 months ago , বিভাগ : অর্থনীতি,
মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক:  প্রক্টরের অপসারণসহ ৪ দফা দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্র্যের কার্যালয় ঘেরাও করেছে ‘নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দের’ ব্যানারে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।
আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে জড়ো হয়ে মিছিল শুরু করে শিক্ষার্থীরা। পরে মিছিলটি টিএসসি, কলাভবন, বিজনেস ফ্যাকাল্টি, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ ঘুরে উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে আসে।
সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে শিক্ষার্থীরা। এ সময় উপাচার্য কার্যালয়ের প্রধান ফটক ধরে ধাক্কা দিতে থাকে তারা।
এক পর্যায়ে বেলা ১২টার দিকে উপাচার্য কার্যালয়ে প্রধান ফটকের দুটি তালা ভেঙে কার্যালয় প্রাঙ্গণে ঢুকে যায় তারা। বেলা ১টার দিকে উপাচার্য কার্যালয় ভবনের কলাপসিবল গেটও ভেঙে ফেলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।
ভবনের ভেতরের আরেকটি গেট ভেঙে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত উপাচার্যের রুমের সামনে অবস্থান নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান।
উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান তার কার্যালয়েই অবস্থান করছেন।
রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী’ ব্যানারে গত ১৫ জানুয়ারির আন্দোলন কর্মসূচিতে ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘নিপীড়নের’ প্রতিবাদে আন্দোলনের সামনে আসে নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীরা। গেট ভেঙে ঢাবি উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও
নিপীড়নে জড়িত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বহিষ্কারের দাবিতে গত ১৭ জানুয়ারি প্রক্টর কার্যালয়ও ঘেরাও করে তারা।
এ ছাড়া ছাত্র প্রতিনিধিদের নিয়ে শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে ‘হামলার’ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে ২ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার দাবিও রয়েছে শিক্ষার্থীদের।
গত ১৫ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ছাত্রলীগ হামলা চালায়। এ সময় ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করারও অভিযোগ ওঠে। এর প্রতিবাদে গত ১৭ জানুয়ারি ‘নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দের’ ব্যানারে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ওইদিন জড়িতদের বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে প্রক্টরকে পাঁচ ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন তারা। শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি দেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের গেট বন্ধ করে দিলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা সেদিন কলাপসিপল গেট ভেঙে ফেলেন। ওইদিন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানকে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেওয়া হয়। এরপর ১৮ জানুয়ারি প্রক্টর অজ্ঞাত ৫০ জন ভাঙচুরকারীকে আসামি করে শাহবাগ থানায় মামলা করেন।
এ সময় আন্দোলনকারীরা কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো- সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর যৌন নিপীড়ক ও হামলাকারী ছাত্রলীগ নেতাদের বহিষ্কার করতে হবে, নিপীড়নবিরোধী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে,  সাত কলেজের সমস্যা দ্রুত সমাধান করতে হবে এবং দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ প্রক্টরের পদত্যাগ করতে হবে।
সূত্র: এবিনিউজ
আপনার মতামত লিখুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ