সোমবার,২৪শে জুলাই, ২০১৭ ইং,৯ই শ্রাবণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ১২:৪০

জলঢাকায় প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষকগণের বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন পার্বতীপুরে ২০৭ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃক্ষ রোপন দায়িত্ব পালনে উদ্ভাবনী শক্তি কাজে লাগাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ঝিনাইগাতীতে ১১দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শিক্ষক-কর্মচারী ফ্রন্টের সমাবেধ ও মিছিল চিরিরবন্দরেজাতীয়পাবলিকসার্ভিসদিবসউদযাপন লালপুরে জাতীয়করণের দাবিতে বেসরকারি শিক-কর্মচারীদের মানববন্ধন সেন্সরে যাচ্ছে ‘ফিফটি ফিফটি লাভ’

ঈদের ছুটি ৬দিন করার প্রস্তাব: অপেক্ষা প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের

মুক্তিনিউজ২৪.কম ডেস্ক: আজ সোমবার মন্ত্রিসভায় ঈদে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি দ্বিগুণ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।  এর আগে ঈদের ছুটি ছয়দিন করার প্রস্তাব তৈরি করে এ সংক্রান্ত একটি সার-সংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজকের মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রস্তাবটি উপস্থাপন করা হতে পারে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শুধু ঈদুল ফিতরের জন্যই নয়, ঈদুল আজহার সময়ও ছয়দিন ছুটি দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এ সংক্রান্ত সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ইনোভেশন টিম এর ২৭তম সভায় তিন নম্বর সিদ্ধান্তে পবিত্র ঈদের ছুটির সময় যানবাহনের ওপর মাত্রাতিরিক্ত চাপ, দুর্ঘটনা বৃদ্ধি ও দীর্ঘ ট্রাফিকজামের সৃষ্টি হওয়া এবং ঈদের ছুটির শেষে অফিস খোলার পরবর্তী দুই একদিন কর্মচারীদের উপস্থিতি কম থাকা সত্ত্বেও অফিসের ইউটিলিটি সার্ভিস, লিফট ও গাড়ি চালু রাখতে হয়।’

ওই সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়, ‘ফলে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সর্বোচ্চ ব্যবহার হয় না। ঈদের তিনদিনের ছুটির সঙ্গে নৈমিত্তিক ছুটির ২০ দিনের পরিবর্তে ১৪ দিন রেখে বাকি ছয়দিন দুই ঈদের সাথে তিনদিন করে সমন্বয় করার প্রস্তাব করা হয়েছে।’

সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়েছে, ‘অন্য ধর্মাবলম্বীরা দুই ঈদের ছুটি ভোগ করলেও তাঁদের প্রধান দুটি ধর্মীয় উৎসবের সঙ্গে দুইদিন করে চারদিন ঐচ্ছিক ছুটির প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে বিভিন্ন পর্বের জন্য বিদ্যমান ছুটির ভারসাম্য বজায় থাকবে।’

বর্তমানে ঈদের ছুটি তিনদিন করে দেওয়া হয়। প্রস্তাবে আরো তিনদিন যোগ করার কথা বলা হয়েছে। দুই ঈদের ওই ছয়দিন নৈমিত্তিক ছুটি থেকে নেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।

নতুন প্রস্তাবের ব্যাপারে ওই সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়, ‘যানবাহনের ওপর চাপ কমবে। দুর্ঘটনা কমবে। ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরে আসার প্রবণতা বৃদ্ধি পাবে। খোলার পর অফিস পুরোদমে চালু হবে।’

সার সংক্ষেপে আরো বলা হয়েছে, ‘অন্য ধর্মাবলম্বীরা দুই ঈদের ছুটি ভোগ করলেও তাঁদের প্রধান দুটি ধর্মীয় উৎসবের সঙ্গে দুইদিন করে চারদিন ঐচ্ছিক ছুটির প্রস্তাব করা হয়েছে। ফলে বিভিন্ন পর্বের জন্য বিদ্যমান ছুটির ভারসাম্য বজায় থাকবে।’

এর আগে ৬ জুন ঈদের ছুটি দ্বিগুণ করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে একটি সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। ওই প্রস্তাবে সম্মতি না দিয়ে এর সঙ্গে অন্য ধর্মীয় উৎসবের ছুটি বৃদ্ধির বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশ দেয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন প্রস্তাব পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২৬ বা ২৭ জুন বাংলাদেশে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। তবে ২৬ জুন ঈদ ধরে ২৫, ২৬ ও ২৭ জুন ঈদের ছুটি নির্ধারিত আছে। ঈদের আগে সরকারি চাকরিজীবীদের শেষ অফিস ২২ জুন। ২৩ জুন শবেকদর।

২৪ জুন শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি, ২৫ থেকে ২৭ জুন ঈদের ছুটি এবং মাঝে ২৮ ও ২৯ জুন অফিস খোলা। ৩০ জুন শুক্রবার ও ১ জুলাই শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি। অর্থাৎ ২৮ ও ২৯ জুন অফিস বন্ধ থাকলে ২৩ জুন থেকে ১ জুলাই পর্যন্ত ৯ দিন ছুটি কাটিয়ে ২ জুলাই থেকে অফিস শুরু হবে।

আপনার মতামত লিখুন

জাতীয় বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ